মোমেনের সাথে প্রার্থী হচ্ছেন মিসবাহ

প্রকাশিত: ৫:৩০ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ৩০, ২০২৩

মোমেনের সাথে প্রার্থী হচ্ছেন মিসবাহ

সিলেট-১ আসনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পেয়েছেন এখানকার বর্তমান সংসদ সদস্য পররাষ্ট্র মন্ত্রী ড. একে আবুল মোমেন। তবে সোমবার নির্বাচন কমিশন থেকে মনোনয়পত্র সংগ্রহ করেছেন আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ।

মিসবাহ এবার সিলেট-১ ও ৩ আসন থেকে দলীয় মনোনয়নপ্রত্যাশী ছিলেন। নৌকা না পেয়ে তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হবেন বলে জানা গেছে।

নির্বাচনকে প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক করতে ডামি প্রার্থী রাখতে মনোনয়নপ্রাপ্তদের নির্দেশনা দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। নৌকার বিরুদ্ধে দলীয় কোন নেতা প্রার্থী হলে এবার শাস্তিমূলক কোন ব্যবস্থা না নেওয়ারও ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি। দলীয় প্রধানের এমন প্রশ্রয়ে এবার মনোনয়নবঞ্চিত আওয়ামী লীগ নেতাদের অনেকেই স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ার চিন্তা করছেন।

গত নির্বাচনে সিলেট-১ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন একে আব্দুল মোমেন। এরআগে টানা দুই মেয়াদে এই আসনের সংসদ সদস্য ছিলেন মোমেনের অগ্রজ, সাবেক অর্থমন্ত্রী প্রয়াত আবুল মাল আবদুল মুহিত। স্বাধীনতার পর থেকে সিলেট-১ আসন থেকে নির্বাচিত প্রার্থীর দলই সরকার গঠন করেছে, ফলে এই আসনটি ভোটের রাজনীতিতে বিশেষ গুরুত্ব বহন করে।

সোমবার নির্বাচন কমিশন থেকে সিলেট-১ আসনের জন্য মিসবাহ উদ্দিন সিরাজের পক্ষে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করা হয়। মিসবাহ টানা তিনবার আওয়ামী লীগের কেন্দ্রিয় কার্যনির্বাহী কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। এছাড়া সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সিলেট জেলা জজ কোর্টের পিপির দায়িত্বও পালন করেন দীর্ঘদিন। গত সিলেট সিটি নির্বাচনেও মেয়র পদে দলীয় মনোনয়নপত্যাশী ছিলেন তিনি।

এ ব্যাপারে মিসবাহ উদ্দিন সিনাজের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি। তবে বিকেলে ফেসবুকে দেয়া এক পোস্টে তার প্রার্থী হওয়ার ইঙ্গীত মিলেছে। ফেসবুকে মিসবাহ লিখেন- ‘আপনাদের সমর্থন,ভালোবাসা ও দোয়া প্রত্যাশা করছি।’

মিসবাহর ঘনিষ্ট একজন জানান, মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ সিলেট-১ আসনে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। স্বতন্ত্র প্রার্থী হতে নির্বাচন কমিশনের বাধ্যবাধকতা মেনে একশতাংশ ভোটারের স্বাক্ষর সংগ্রহ করছেন তিনি।

দলীয় নেতাদের স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়া প্রসঙ্গে সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক জাকির হোসেন বলেন, নির্বচিনকে উৎসবমুখর ও অংশগ্রহণমূলক করতে দলীয় প্রধানই ডামি প্রার্থী হওয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন। যাতে করে ভোটে মানুষের সম্পৃক্ততা বাড়ে। ফলে যে কেউ প্রার্থী হতে পারেন। তবে ডামি প্রার্থীরা নৌকার বিজয়ে কোন প্রভাব ফেলতে পারবেন না বরং নির্বাচনকেই তারা উৎসবমুখর করবেন।

এস এ

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ